‘নো বল’ ধরতে আইসিসির নতুন নিয়ম

খেলা চলাকালে বোলারের করা নো বল ধরতে পারেননি আম্পায়াররা। অস্ট্রেলিয়া-পাকিস্তান টেস্টে এক দিনে ২০টির বেশি নো বল আম্পায়ারের চোখ এড়িয়ে যায়। তাই-তো নো বলের নিয়ম আনতে যাচ্ছে ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট কাউন্সিল (আইসিসি)।

এখন থেকে এই ধরনের নো বলের সিদ্ধান্ত দেবেন থার্ড আম্পায়ার বা টিভি আম্পায়ার। পায়ের নো বলের সিদ্ধান্ত অনেক সময়ই সঠিক সিদ্ধান্ত দিতে পারেন না মাঠে দায়িত্ব পালন করা ফিল্ড আম্পায়ার। কিছু কিছু সময় ব্যাটসম্যান আউট হয়ে প্যাভিলিয়নে ফেরার মুহূর্তে দেখা যায় বোলারের করা নো বল চোখ এড়িয়ে গেছে আম্পায়ারের।

ক্রিকেটে বোলারদের পায়ের নো বল ধরতে নতুন নিয়মের ব্যবহার শুরু করছে আইসিসি। এ মাসের শেষে অস্ট্রেলিয়ায় অনুষ্ঠেয় নারীদের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ থেকেই এ নিয়মের ব্যবহার শুরু হবে। নিয়মটির পরীক্ষা-নিরীক্ষা ইতিমধ্যেই ভারত ও ওয়েস্ট ইন্ডিজে সম্পন্ন হয়েছে।

এ নিয়ম ব্যবহার করে টেলিভিশন আম্পায়ার প্রতিটি বলে বোলারের পা ফেলার জায়গা মনিটর করবেন। লাইনের বাইরে পা পড়লেই তিনি সেটি সঙ্গে সঙ্গে মাঠের আম্পায়ারকে জানিয়ে দেবেন। মাঠের আম্পায়ার পায়ের নো বল ডাকবেন কেবল টেলিভিশন আম্পায়ার তাঁকে জানালেই। পায়ের নো বল ছাড়া বাকি অন্য যেকোনো নো বল ডাকার অধিকার মাঠের আম্পায়ারের থাকছে।

এই নিয়ম সম্প্রতি পরীক্ষামূলকভাবে ১২টি খেলায় ব্যবহৃত হয়েছে। এই খেলাগুলোয় করা ৪ হাজার ৭১৭টি বলের মধ্যে নিয়মের মাধ্যমে নো বল ধরা হয় মাত্র ১৩টিতে। হার ০.২৮ শতাংশ।

এ ব্যাপারে আইসিসির মহাব্যবস্থাপক জিওফ অ্যালারডাইস রীতিমতো উচ্ছ্বসিত, ‘এ নিয়মের মধ্য দিয়ে পায়ের নো বলে ভুল-ভ্রান্তি কমে আসবে। ক্রিকেট সব সময়ই নতুন নতুন নিয়ম ও প্রযুক্তি ব্যবহারের ক্ষেত্রে এগিয়ে আছে। নো বল ডাকা মাঠের আম্পায়ারের জন্য সব সময়ই কঠিন কাজ। তারপরেও পায়ের নো বলে ভুলের হার কিন্তু অনেক কম। তবে এ নিয়ম ব্যবহারে এটি নেমে আসবে শূন্যের কোটায়।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *